স্মরণাঞ্জলি || দেবাশীষ ভট্টাচার্য্য




পোস্ট বার দেখা হয়েছে

অমোঘ


স্তব্ধতা জানে নিঃশ্বাসের মানে ,

জলের মতো ধারা বয়ে ছুটে সর্বহারা,

মানুষ পাতার দূত - ঝড়ে যায় কারণে, মিছে ,

গল্পের পরিধি ঘরের মতো পরিষ্কার -

একটা মুহুর্ত থেকে আরেকটা পথে ছড়ায় হাহাকার।


মৃত্যু তুমি উৎসাহ দিয়ে যাও -

যাঁরা বেঁচে আছে স্মৃতির হাত ধরে,

তাঁদের এগিয়ে চলতে শেখাও।


আত্মার ভীতরে যে খনন -

যে প্রাভাবিত গাথা,

কখনও বুঝতে পারি আঘাত -

কখনও মেলে ধরে বোধের বারোতা ।


নির্বাক হই, নিথর দেহের পাশে বসে , 

যে চলে যায় প্রতিদিন স্মৃতিকথা ধরে ফিরে ফিরে আসে।


====

অপেক্ষা 


আচমকা আছড়ে পড়া রোদ -

সরিয়ে দেয় ডালপালা - পাহাড়,

ফুঁটো করে পাতার শরীর,

আর আমার দুচোখ -

এবং যারা শান্তির পথচারী,

চিরঘুমে বেঁধেছে বাসা ,

আমিও প্রবল বেগে ছুটি -

ধরতে পারিনি আজও সেই ট্রেন,  

স্টেশন জানায় স্মৃতিকথা।


অনন্ত উদার হয়ে যায়,

বদলে যায় লাভ লোকসান ,

পথেরা ছেটানো খৈ বুকে ধরে -

চিতাদের শোনায় জীবনমুখী গান।


এই পথেই আবার সকাল হলে,

ছুটবে গাড়ি - চলবে সময় একাধারে,

রোদেরা রোজ আসে যায় - 

ভালোবাসা অপেক্ষাই শুধু করে। 


===

পরিস্থিতি


উন্মুক্ত আকাশে যতটুকু দ্যাখা যায়,

যতোটা দুচোখে ঝলসে ওঠে রোদের শরীর,

আমিও ঘুমিয়ে পড়তে পারতাম একাকী জানালায়,

বসন্তের এই শীতল রাতে - শাদা চাঁদ জাগায় ।


আমার ধ্বংসাবশেষ জুড়ে তোমার প্রবণতা,

আমার উদাসী পথে, তোমার কোলাহল জেগে,

কতোবার ভেবেছি নষ্ট করে দেবো সব সুখ এভাবেই,

প্রত্যেক মৃত্যুর পর আমায় রোজ জন্ম দেয় কে? 


আমার ধ্বংসাবশেষ জুড়ে তোমার প্রবণতা,

আমার উদাসী পথে, তোমার কোলাহল জেগে,

কতোবার ভেবেছি নষ্ট করে দেবো সব সুখ এভাবেই,

প্রত্যেক মৃত্যুর পর আমায় রোজ জন্ম দেয় কে? 


( Your tendency across my ruins,

 In my sad way, your noise wakes up,

 How many times have I thought I would ruin all happiness like this,

 Who gives birth to me every day after death? )

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

2 মন্তব্য