দর্পণ পিডিয়া প্রতিষ্ঠান




পোস্ট বার দেখা হয়েছে


পেজের নাম- স্বরবর্ণ sworobarna
category - magazine

 স্বরবর্ণ হল বাংলা সাহিত্যের এক মোক্ষম স্থান। বর্তমানে ফেসবুকে স্বরবর্ণ পেজে প্রকাশিত হয় নানান ধরনের কবিতা, অণুকবিতা, অণুগল্প, গল্প ইত্যাদি। ইতিমধ্যে স্বরবর্ণের উদ্যোগে একটি অনলাইন ব্লগ পত্রিকা স্বরবর্ণ সাহিত্য পত্রিকার প্রথম সংখ্যা প্রকাশিত হয়েছে।
যেসকল সাহিত্যানুরাগী ব্যক্তি এই যন্ত্র সভ্যতায় নিজের মানস রস অক্ষুণ্ণ রাখতে চান তারা আমাদের পেজটিকে লাইক এবং ফলো করুন পরবর্তীকালে সাহিত্যকে আপনার ফেসবুকে পেতে। নীচের দেওয়া লিঙ্কে ক্লিক করে চলে যান আমাদের পেজে।
https://fb.me/sworobarnawriter

---------------------------------------------------------------
বিবেক মন্দির
(A Family to Serve The Living God)


যোগাযোগ -ইমেল: vivekmandir2008@gmail.com
ফোন: 8902554428

সালটা ছিল ২০০৮। বেলঘড়িয়া রামকৃষ্ণ মিশন আশ্রমের এক আবাসিক ছাত্রের হঠাৎই মনে হয় তার বাড়ির প্রত্যন্ত গ্রামে আর্থিকভাবে দুর্বল মানুষদের জন্য কিছু জামাকাপড় দিলে কেমন হয়। সটান চলে ‌যায় মিশনের মহারাজ স্বামী নিত্যসত্যানন্দের কাছে। ‌
যেমন ভাবা তেমন কাজ। মহারাজের উৎসাহে জলঙ্গি থানার সর্দারপাড়ার ৩২ টি পরিবারের জন্য জামাকাপড় নিয়ে পৌঁছে গেল সেই তরুণ। সঙ্গে জুটে গেল স্থানীয় বেশ কিছু স্কুল পড়ুয়া। তারপর থেকে আর পিছনে তাকাতে হয়নি সেই ছাত্র রাকেশ শর্মা আর তার সাঙ্গপাঙ্গদের। ভাল কাজ করা আর সমাজের পাশে দাঁড়ানোর মানসিকতা নিয়ে মুর্শিদাবাদের প্রত্যন্ত গ্রাম

হুকাহরায় পথ চলা শুরু। সমাজের পিছিয়ে পড়া মানুষদের পাশে দাঁড়াতে বাধা হয়নি অভাব। ঠিক জুটে গেছে অর্থ। শুধু পোশাকেই থেমে না থেকে গ্রামের ছেলেমেয়েদের শিক্ষার আলো পৌঁছে দিতে শুরু হয় ফ্রি কোচিংয়ের ব্যবস্থা। আট জন সদস্য মিলে তৈরি করা হয় হুকাহরা বিবেক মন্দির ও বিবেক আশ্রম।
বিবেক মন্দির ও বিবেক আশ্রম
বিবেক মন্দির ও বিবেক আশ্রম
গ্রামেরই শিবমন্দিরে শুরু হয় প্রথম শ্রেণি থেকে দশম শ্রেণি পর্যন্ত ফ্রি কোচিং। ১৪ জন পড়ুয়াকে নিয়ে শুরু হওয়া কোচিংয়ে এখন পড়তে আসে ৮৬ জন। পড়ার জন্য এখন তৈরি হয়েছে একটা বাড়ি। এখন আর প্রাকৃতিক দুর্যোগে কষ্ট হয়না কচিকাঁচাদের। সপ্তাহে পাঁচ দিনই চলে পড়াশুনা। নিখরচায় পড়তে পেরে গ্রামের শিশু কিশোররাও খুশি।
পড়াশুনার পাশাপাশি পঞ্চম শ্রেণি থেকে দশম শ্রেণি পর্যন্ত প্রতি বছর বই দেওয়া হয়। ঠাকুর রামকৃষ্ণ, মা সারদা ও স্বামী বিবেকানন্দের আদর্শ প্রচার করতে রয়েছে স্টাডি সার্কেলের ব্যবস্থা।
হুকাহরা গ্রামে কোনওদিন দুর্গা পুজো হতোনা। এই আশ্রমের উদ্যেগেই শুরু হয়েছে শারদোৎসব। এখন আর গ্রামের মানুষদের ‌যেতে হয়না দুরে জলঙ্গিতে। গ্রামেই হচ্ছে পুজো পার্বণসহ নানা সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। এই সংস্থার হাত ধরেই জলঙ্গি ব্লকের প্রায় ১৫০০ পরিবারের কাছে পৌঁছে ‌যায় ত্রাণ।
এক তরুণের ভাবনা থেকে শুরু হওয়া সমাজের প্রতি দায়বদ্ধতা আজ মহীরুহ। আটজন সদস্য সংখ্যা বেড়ে আজ ২৮। জলঙ্গির এই বিবেক আশ্রম তাই আবারও একবার দেখিয়ে দেয় ‌যে ভাল কাজের ইচ্ছা থাকলে বাধা হয়না কোনও কিছুই।
---------------------------------------------------------------

রঙমিলান্তি পত্রিকা
(সাহিত্য সংস্কৃতির প্রতিভার অন্বেষণে)
সম্পাদক : রাকেশ শর্মা



লেখা গ্রহণ খরা হচ্ছে- 9143627332

---------------------------------------------------------------

হারিত


অনলাইন বুক সেলার
 প্রোপাইটার : উজ্জয়িনী মিত্র

 ঠিকানা www.haritbooks.com
 যোগাযোগ haritbooks@gmail.com
হরিৎ: ৮৩৩৬৯৪১১০৮

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য